কলকাতা মঙ্গলবার, ৩০ নভেম্বর ২০২১, ০৩:১৮ ( AM )
মমতা ‘জুজু’র জন্যই কি কৃষিবিল প্রত্যাহার ?
জয়ন্ত ঘোষাল
  • প্রকাশের সময় : শুক্রবার, ১৯ নভেম্বর, ২০২১, ০৭:১৮:৫৫ পিএম
  • / ১৪৪ বার খবরটি পড়া হয়েছে
  • • | Edited By:

আজ মনে পড়ছে, কৃষি বিলের বিরুদ্ধে কৃষকদের আন্দোলন যখন দিল্লিতে শুরু হল তখন হরিয়ানা এবং উত্তরপ্রদেশের সীমান্তে তাঁরা অবস্থান করছেন। সেই আন্দোলন ভাঙার জন্য দিল্লির সরকার বাহাদুর খড়্গহস্ত। নানানভাবে চেষ্টা চলছে এই আন্দোলন প্রত্যাহার করার, এ প্রায় এক বছর আগের কথা। আরও মনে পড়ছে যে, এই আন্দোলনটা মূলত অরাজনৈতিক আন্দোলন, কৃষকদের আন্দোলন। কৃষকদের মধ্যে নানান স্তর থাকতে পারে কিন্তু কোনও রাজনৈতিক দলের পোস্টার-ব্যানার নিয়ে এই আন্দোলনটা শুরু হয়নি।  

সম্ভবত মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় প্রথম মুখ্যমন্ত্রী ও বিরোধী দলনেত্রী যিনি ফোন করেন কৃষক নেতাদের এবং তাঁর সমর্থন প্রথমেই জানিয়ে দেন। কৃষকদের ইস্যু যেখানে মমতা সবসময় সেখানে এগিয়ে যান, সমর্থনের হাত বাড়ান। ভুলে গেলে চলবে না যে, কমিউনিস্ট পার্টি যে রকম একদা তেভাগা এবং তেলেঙ্গানার কৃষি আন্দোলনের মধ্য দিয়ে উত্থিত হয়েছে, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের রাজনীতিও কিন্তু সিঙ্গুর ও নন্দীগ্রামে কৃষকদের জমি অধিগ্রহণের ইস্যুতেই গড়ে উঠেছে।

আরও পড়ুন: সিঙ্গুর থেকে সিংঘু, ঐতিহাসিক অগ্নিপথ

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ফোনে কৃষক নেতারা সাড়া দেন এবং টিকায়েত নিজে কলকাতায় আসেন এবং সিঙ্গুরে যান। টিকায়েতের কলকাতায় আসা নিয়েও সেই সময় বিজেপির রাজ্য নেতারা ক্ষুদ্ধ হন এবং বারবার তাঁরা সমালোচনার তোপ দাগেন। ক’দিন আগেও শুনছিলাম, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যখন কলকাতায় শিল্পের নিয়ে কথা বলছিলেন, তখন বিজেপি নেতারা মমতার জমি অধিগ্রহণের নীতি বদলানোর দাবি তুলেছেন।

আজ কিন্তু কৃষি বিল প্রত্যাহার করতে যখন নরেন্দ্র মোদী বাধ্য হলেন, সেটা ভোটের জন্যই হোক, কৃষক আন্দোলনের চাপে হোক, সংসদ অধিবেশনের আগে বিরোধীদের বিক্ষোভের ভয়েই হোক এবং মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ‘জুজু’ দেখেও হতে পারে। কেননা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এ বার কৃষক আন্দোলনের ব্যাপারে সংসদে সোচ্চার হবেন বলে তৃণমূল কংগ্রেসকে মোটামুটি তৈরি করে ফেলেছিলেন। সেই পরিস্থিতিতে এই বিল প্রত্যাহার যথেষ্ট তাৎপর্যপূর্ণ।

রাজনীতিটা হল আর্ট এবং সায়েন্স, দু’টোই। এই যে প্রায় এক বছর ধরে চলা কৃষক আন্দোলন, তারপর, আজ গুরু নানকের জন্মদিনে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী তিনটি কৃষি বিল প্রত্যাহার করে নিলেন। তিনি কৃষকদের উদ্দেশে বললেন, ‘আসুন আমরা একটা নতুন অধ্যায় শুরু করি। আপনারা এখন যে যার নিজের বাড়ি চলে যান। ক্ষেতে যান। একটা নতুন অধ্যায় শুরু করা যাক।’

এটা কৃষক আন্দোলনের সাফল্য। এত বাধা-নিষেধ, দমন-পীড়ন, এতদসত্ত্বেও কোনও রকম চাপের মুখে নতিস্বীকার না করে টিকায়েতের নেতৃত্বে কৃষক আন্দোলন সফল হল।

আরও পড়ুন: সত্যাগ্রহীদের কাছে মাথা নোয়াল আক্রমণাত্মক হিন্দুত্ববাদ

সুতরাং সায়েন্স বা বিজ্ঞান হল, নরেন্দ্র মোদী, তাঁর যে রাজনৈতিক কর্তৃত্ব, যে অহঙ্কার, যে রোল ব্যাক না করার তীব্র মানসিকতা, এ সবেরই একটা রাজনৈতিক পরাজয়। কিন্তু, এই বিজ্ঞানের পাশাপাশি নরেন্দ্র মোদীর রাজনীতির কৌশলের একটা আর্ট-ও এখানে নিহিত আছে। সেটা হল রাজনীতিতে শুধু সাফল্য হয় না, ব্যর্থতাও আসে। এটা এক ধরনের প্যাকেজ ডিল। কিন্তু রাজনীতিতে ব্যর্থতার মধ্যে থেকে সেই সংকটজনক অধ্যায় থেকে বেরোনোর রাস্তা কী হতে পারে তার পথ বের করাটা হচ্ছে ‘আর্ট’। আর্ট অফ ওয়ার্ক।

পাঞ্জাব ও উত্তরপ্রদেশের বিধানসভা নির্বাচন আসন্ন। এই নির্বাচনে একদিকে বিস্তীর্ণ পাঞ্জাব রাজ্য আর উত্তরপ্রদেশের বিশেষত পশ্চিমাঞ্চল কৃষক আন্দোলন দ্বারা প্রভাবিত। কেননা এই এলাকায় জাঠ সম্প্রদায় ও কৃষিভিত্তির মানুষ প্রচুর রয়েছেন। প্রয়াত চরণ সিংয়ের নাতি অর্থাৎ প্রয়াত অজিত সিংয়ের পুত্র জয়ন্ত সিং এখন সেখানে নেতৃত্ব দিচ্ছেন এবং অখিলেশের সঙ্গে আছেন। এই এলাকায় পরাজয় যোগী আদিত্যনাথের জন্য মোটেও কাঙ্খিত নয়। আবার পঞ্চনদের তীরে যারা বেণী পাকাইয়া শিরে বিজেপিকে কার্যত কোণঠাসা করে দিয়েছে সেখানে হৃত গৌরব উদ্ধার করার চেষ্টা নানান ভাবে করছে সেখানে। এই বিল প্রত্যাহারও একটা ক্ষত-র স্থান নিরাময়ের চেষ্টা।

এমনকি ক’দিন আগে পাকিস্তানে শিখ ধর্মাবলম্বীদের গুরু নানকের পবিত্র জন্মস্থানে যাওয়ার যে অনুমতি খোদ কট্টরবাদী নেতা কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ ঘোষণা করলেন সেটাও সেই রাজনীতিরই অঙ্গ। এটাতে কোনও সন্দেহ নেই যে পাকিস্তানের করতারপুরে শিখ পূণ্যার্থীরা যে যাবেন তার সমস্ত ব্যবস্থা করার জন্য নিশ্চই আগাম পাকিস্তানের সঙ্গেও প্রকাশ্যে না হলেও গোপনে কোনও একটা স্তরে আলাপ আলোচনা সরকার করেছে। তা না হলে এটা সম্ভব হয় কী করে!

আরও পড়ুন: প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণার পর কোন পদ্ধতিতে বাতিল হবে ৩ কৃষি আইন

সুতরাং, আজকের উপরাষ্ট্রপতি ভেঙ্কাইয়া নাইডু একদা বলেছিলেন যে নরেন্দ্র মোদী রোল ব্যাক করেন না। তিনি ‘নো রোল ব্যাক’ প্রধানমন্ত্রী। যেটা সিদ্ধান্ত নেন সেটায় দৃঢ় সিদ্ধান্ত নেন, পিছু হটেন না। তাই হরিয়ানায় অজাঠ মুখ্যমন্ত্রী যতই সমালোচনার মুখে পড়ুন, তিনি বদলাননি। মহারাষ্ট্রেও ব্রাহ্মণ মুখ্যমন্ত্রী করে, অ-মারাঠা মুখ্যমন্ত্রী করে তিনি চালিয়ে গেছেন। পিছু হটেননি। কিন্তু এই দ্বিতীয় অর্ধের মোদী শাসনের যতই ২০২৪-এর লোকসভা নির্বাচন এগিয়ে আসছে দেখা যাচ্ছে মোদীর সেই কঠোর মানসিকতার যে রণকৌশল সেটা বদলাতে বাধ্য হচ্ছে।

 কর্ণাটকের মুখ্যমন্ত্রীর বদল হয়েছে। উত্তরাখণ্ডে তো বেশ কয়েকবার বদল করতে হয়েছে মুখ্যমন্ত্রীকে। বহু সিদ্ধান্তের ক্ষেত্রেই নরেন্দ্র মোদীকে পিছু হটতে হয়েছে। কিন্তু এই বিল প্রত্যাহারের ব্যাপারে এতটাই তিনি অনমনীয় ছিলেন, কেননা এই বিল প্রত্যাহারের সঙ্গে সঙ্গে কর্পোরেট জগত, শিল্প জগত, আন্তর্জাতিক দুনিয়ায় কিন্তু আবার নরেন্দ্র মোদীর একটা নেতিবাচক প্রতিক্রিয়া হয়েছে। এমনকি কংগ্রেস তো এই কৃষি সংস্কারের পক্ষেই ছিল। ইউপিএ জমানাতেও কৃষি সংস্কার চেয়েছিল কংগ্রেস নেতৃত্ব। মনমোহন সিং এই বিলের পক্ষেই ছিলেন। যদিও কংগ্রেস এখন বলে তারা যে বিলের খসড়া করেছিল আর এখন যে বিল পাশ করা হয়েছে সেটা এক নয়। সেখানে অনেক সংশোধন প্রয়োজন।

সোজা কথায়, এক পক্ষ বলছে যে, এই বিল কৃষকদের স্বার্থ রক্ষা করবে না এবং সেগুলো কর্পোরেট, আম্বানি-আদানিদের স্বার্থ রক্ষা করবে। আর অন্যদিকে শাসক দল বলছে, এটাতে আরও কৃষকদের রোজগার বাড়বে।

যখন কৃষক আন্দোলন শুরু হয়েছিল তখন কিন্তু এই আন্দোলন ভাঙার জন্য সবরকম চেষ্টা হয়েছে। দিল্লির সীমান্তে পুলিশ গেছে, লাঠিচার্জ হয়েছে, অনেক কৃষক মারাও গেলেন। এমনকি কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর পুত্রের গাড়ি চাপা দিল কৃষকদের। সেই ঘটনা বোধহয় আন্দোলনকে আরও তীব্র থেকে তীব্রতর করে দিয়েছে। অনেকে বলেছিল যে, কৃষকদের আন্দোলনটা বড়লোকদের আন্দোলন। এখানে শুধু এসি লাগানো আছে, বড় বড় ট্রাক্টর নিয়ে আসছে। এরা তো কৃষক নয়, এরা কুলাক। এরা জোতদার, জমিনদার। কিন্তু দেখা গেল যে গোটা রাজ্যে এই কৃষক আন্দোলনের প্রভাব পড়ল। এমনকি পশ্চিমবঙ্গে যেখানে ভূমি সংস্কার হয়েছে এবং খণ্ড-বিখণ্ড বর্গাদার আছে, ভাগচাষী আছে, তাঁরাও কিন্তু কৃষক আন্দোলনের একটা প্রতীকী সমর্থনের পথে এগিয়ে এল। অর্থাৎ কৃষক আন্দোলনটা একটা অখণ্ড ভারতের আন্দোলন হয়ে উঠল।

আরও পড়ুন: কেন তিন কৃষি আইন প্রত্যাহার, কী যুক্তি দিলেন মোদি? ডি-কোড করল কলকাতা টিভি ডিজিটাল

আর একটা গুরুত্বপূর্ণ তথ্য সেটা হল, এই আন্দোলনটা কিন্তু অরাজনৈতিক আন্দোলন। বহুদিন পর রাজনৈতিক ব্যবস্থার বিরুদ্ধে একটা অরাজনৈতিক ব্যবস্থার প্রতিবাদ যেখানে গোটা দেশের নাগরিক সমাজ যুক্ত হয়েছে এবং সঠিক সময়ে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ভোটের সময় তিনি কিন্তু ফোন করে টিকায়েতের সঙ্গে কথা বলেছেন, টিকায়েত কলকাতায় গেছেন, মমতার সঙ্গে যোগাযোগ রেখেছেন এবং মমতা তাঁর পাশে দাঁড়িয়েছেন। সিঙ্গুর ও নন্দীগ্রামের মধ্য দিয়ে যে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আজ উঠে এসেছেন মুখ্যমন্ত্রী পদমর্যাদায় তিন তিনবার, সেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কৃষক আন্দোলনের নেত্রী। তিনিই কিন্তু এই আন্দোলনকে আরও অক্সিজেন জুগিয়েছেন সরাসরি।

আর্কাইভ

এই মুহূর্তে

ব্যালন ডি অঁর জয়ী মেসি, সাতটি ব্যালন ডি অঁর জিতে ভাঙলেন নিজের রেকর্ডই
মঙ্গলবার, ৩০ নভেম্বর, ২০২১
Nadia Accident: হাসপাতালে ট্রমা কেয়ার ইউনিট, হাঁসখালির দুর্ঘটনার পর নতুন নির্দেশ নবান্নের
সোমবার, ২৯ নভেম্বর, ২০২১
ওয়ার্কিং কমিটির বৈঠকের পরেই নয়া সিদ্ধান্ত, মেঘালয় তৃণমূল কংগ্রেসের নতুন সভাপতি শ্রী চার্লস পিংগ্রোপ
সোমবার, ২৯ নভেম্বর, ২০২১
চতুর্থ স্তম্ভ: মমতা, তৃণমূল, দেশ
সোমবার, ২৯ নভেম্বর, ২০২১
ভয়াবহ আগুন রাজধানীতে, দাউ দাউ করে জ্বলে গেল বস্তি
সোমবার, ২৯ নভেম্বর, ২০২১
মুম্বই টেস্টের আগে রাহানের পাশেই দাঁড়াচ্ছেন কোচ দ্রাবিড়
সোমবার, ২৯ নভেম্বর, ২০২১
ষোল বছরের সম্পর্কে ইতি, টুইটারের সিইও’র পদ থেকে ইস্তফা দিলেন জ্যাক ডরসি
সোমবার, ২৯ নভেম্বর, ২০২১
কোর কমিটির বৈঠকে মুকুল রায়, কতটা নম্বর বাড়ল তৃণমূলে?
সোমবার, ২৯ নভেম্বর, ২০২১
স্বপ্নপূরণ, গোয়ায় সোনা জয় বাংলার কিক বস্কার পিউ ঢালীর
সোমবার, ২৯ নভেম্বর, ২০২১
লক্ষ্য ২০২৪, সর্বভারতীয় স্তরে শক্তি বৃদ্ধিতে আদাজল খেয়ে নেমে পড়ল তৃণমূল কংগ্রেস
সোমবার, ২৯ নভেম্বর, ২০২১
মঙ্গলবার আবার ওড়িশার বিরুদ্ধে ইস্ট বেঙ্গলের অগ্নিপরীক্ষা
সোমবার, ২৯ নভেম্বর, ২০২১
Shashi Tharoor: ‘আমি সেলফি তুলেছি’, শশী থারুরের পাশে দাঁড়িয়ে টুইট মিমির
সোমবার, ২৯ নভেম্বর, ২০২১
Shashi Tharoor: একঝাঁক মহিলা সাংসদকে নিয়ে সেলফি, টুইট করে ট্রোল-বাহিনীর শিকার শশী থারুর
সোমবার, ২৯ নভেম্বর, ২০২১
Acne & Pimples: বেড়েই চলেছে ব্রণ-র সমস্যা, এগুলো কারন নয় তো?
সোমবার, ২৯ নভেম্বর, ২০২১
মশা মারতে ড্রোন! ডেঙ্গু রুখতে অভিনব উদ্যোগ
সোমবার, ২৯ নভেম্বর, ২০২১
© R.P. Techvision India Pvt Ltd, All rights reserved.
Developed By KolkataTV Team