কলকাতা সোমবার, ২০ মার্চ ২০২৩ |
K:T:V Clock
Marichjhapi Massacre: ৪৪ বছর পার, আজও দগদগে মরিচঝাঁপির অভিশপ্ত সেই দিন
কলকাতা টিভি ওয়েব ডেস্ক Published By:  সুদেষ্ণা নাথ
  • প্রকাশের সময় : মঙ্গলবার, ৩১ জানুয়ারী, ২০২৩, ০২:০৮:৫১ পিএম
  • / ৭৬ বার খবরটি পড়া হয়েছে
  • সুদেষ্ণা নাথ

কলকাতা: লেখাটা শুরু করা যাক প্রয়াত আরএসপি নেতা (late RSP leader ), প্রাক্তন বিধায়ক (former MLA) অশোক চৌধুরীর (Ashok Choudhury) বক্তব্য দিয়ে। সুন্দরবন এলাকায় বামপন্থী আন্দোলন ও সংগঠন গড়ে তোলার ক্ষেত্রে অশোকবাবুর বিরাট অবদান ছিল। গত শতকের সাত-আটের দশকে (তখন বামফ্রন্ট সরকার (left fron government) সবে রাজ্যের ক্ষমতায় এসেছে) বা তারও কিছু আগে থেকে সুন্দরবনের বিস্তৃত এলাকায় আরএসপির সংগঠন ছিল জোরদার। সেই সময় সিপিএম (CPM) রীতিমতো সমীহ করে চলত আরএসপিকে। সিপিএমের অভিযোগ ছিল, মরিচঝাঁপিতে উদ্বাস্তুদের (marichjhapi refugees) খেপিয়ে তোলার পিছনে আরএসপির বিরাট অবদান ছিল।

আজ সেই ৩১ জানুয়ারি। ১৯৭৯ সালের এই দিনটিতে মরিচঝাঁপি থেকে বাঙালি উদ্বাস্তুদের তাড়ানোর জন্য সদ্য ক্ষমতায় আসা বামফ্রন্ট সরকারের পুলিশ গুলি চালিয়েছিল। সেই গুলিতে কতজনের মৃত্যু হয়েছিল, তা নিয়ে আজও রহস্য রয়ে গিয়েছে। কত মানুষের লাশ নদীতে ভেসে গিয়েছিল, তারও হিসেব নেই। সেই সময় ওই ঘটনা নিয়ে সংবাদমাধ্যমে বিস্তর লেখালেখিও হয়।

আরও পড়ুন: Gandhi Assassination: গান্ধী হত্যাকারী গডসেকে ধরে ফেলেছিলেন এক ‘নায়ক’, জানেন কে তিনি?

ফিরে আসি প্রয়াত আরএসপি নেতা অশোক চৌধুরীর কথায়। এক ইন্টারভিউতে তিনি বলছেন, ১৯৭৯ সালের ৩১ জানুয়ারি পুলিশের তরফেই অশান্তির পরিবেশ সৃষ্টি করা হয়েছিল। মরিচঝাঁপিতে লোকজন, জিনিসপত্রের প্রবেশ নিষিদ্ধ হয়। অবরোধ জারি হয়। খাবার ঢুকতে দেওয়া হয় না, ওষুধপত্র, এমনকি জলও। এই সময় মরিচঝাঁপি দ্বীপে খেতে না পেয়ে, অখাদ্য কুখাদ্য খেয়ে বহু শিশুর মৃত্যু হয়। এই মৃত্যুর হিসেব কোনওদিন পাওয়া যাবে না। ৩১ জানুয়ারি দ্বীপের বাসিন্দারা মরিয়া হয়ে খাবার ও জল জোগাড়ে বেরিয়ে পড়ে। পুলিশ ওদের নৌকা ধাক্কা মেরে ভেঙে দেয়, ডুবিয়ে দেয়। এরপরেই যুদ্ধ পরিস্থিতি তৈরি হয়। অসম যুদ্ধ। বহু উদ্বাস্তু নিহত হন। পুলিশ কত রাউন্ড গুলি চালিয়েছিল, সে হিসেব পাওয়া যাবে না।

অশোক চৌধুরীর বয়ানে, কুমিরমারির আদিবাসী (Kumirmari tribal) মেনি মুণ্ডাকে রান্নাঘরে ঢুকে কেন গুলি করা হল, কে গুলি চালানোর নির্দেশ দিল, আজও তার জবাব মেলেনি। …..ক্রমাগত প্ররোচনা দিয়ে উদ্বাস্তুদের উত্ত্যক্ত করে ক্ষুধায় তৃষ্ণায় তাদের মৃত্যুর মুখে ঠেলে দিয়ে ৩১ জানুয়ারির কাণ্ড ঘটিয়েছিল পুলিশ। সরকারের অবরোধের কারণে মরিচঝাঁপিতে অনাহারে, অখাদ্য খেয়ে বিনা চিকিৎসায় কত জনের মৃত্যু হয়েছে, তার সংখ্যা কোনও দিন জানা যাবে না। তেমনি জানা যাবে না, ওই বছরেরই ১৪ থেকে ১৬ মে চূড়ান্ত অপারেশনে কত হতাহত হয়েছিল, তার হিসেব। অশোকবাবুর মতে, এই গণহত্যা (mass killing) যেভাবেই হোক, চেপে দিতে পেরেছিল প্রশাসন।

আরও পড়ুন: Mood of the Nation Survey: এই মুহূর্তে ভোট হলে মোদি না বিরোধীরা, কে জিতবে? কী বলছে সমীক্ষা

 দণ্ডকারণ্য (Dandakaranya) থেকে বাঙালি উদ্বাস্তুদের (Bengali refugees) চলে আসার ঢল অনেকদিন ধরেই চলছিল। ১৯৬৫ সাল থেকে ১৯৭৭ সালের মধ্যে ওই সব উদ্বাস্তু পরিবারের এক তৃতীয়াংশ রাজ্যে পালিয়ে আসে। ১৯৭৫ সালেও অনেকে চলে এসেছিলেন, তখন সিদ্ধার্থশঙ্কর রায়ের (Siddhartha Shankar Roy) কংগ্রেস সরকারের (Congress Government) পুলিশ বাংলার সীমানার বাইরে ট্রেন থেকে নামিয়ে পিটিয়ে তাদের ফেরত পাঠিয়ে দেয়। প্রয়াত বিশিষ্ট সাংবাদিক বরুণ সেনগুপ্ত (eminent journalist Barun Sengupta) এই পরিস্থিতির জন্য কেন্দ্রীয় সরকার (Centre), ওড়িশা সরকার (Odisha government), পশ্চিমবঙ্গ সরকার(West Bengal), দণ্ডকারণ্য কর্তৃপক্ষ, বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের ক্রিয়াকলাপকেও দায়ী করেছেন। তিনি লিখেছিলেন, হাজার হাজার মানুষের এই শোচনীয় পরিণতির জন্য আমরা, সংবাদপত্রও দায়ী। আমরা এর পিছনে চক্রান্ত খুঁজে বার করার চেষ্টা করছি, উসকানিদাতাদের উপর সব দোষ চাপিয়ে নিজেদের বাঁচাতে চাইছি।

যে কোনও ভাবে এই সব হতভাগ্য মানুষগুলোকে দণ্ডকারণ্যে ফেরত পাঠিয়ে দিয়ে দায়মুক্ত হতে চাইছি। বিভিন্ন মহল থেকে সেই সময় অভিযোগ উঠেছিল, বামফ্রন্ট সরকার নৃশংসভাবে মরিচঝাঁপি থেকে উদ্বাস্তুদের তাড়িয়েছিল। কিন্তু বামফ্রন্ট সরকারের কট্টর সমালোচক বরুণ সেনগুপ্ত তখন লেখেন, সিদ্ধার্থ রায়ের সরকার জ্যোতিবাবুর সরকারের চেয়ে অনেক নির্দয়ভাবে উদ্বাস্তুদের মোকাবিলা করেছিল। পরে জরুরি অবস্থার সুযোগ নিয়ে উদ্বাস্তুদের মিসায় আটক করে রাখা হয়েছিল, মানা ক্যাম্প ভেঙে দেওয়া হয়েছিল।

আরও পড়ুন: Yellow Journalism in Bengal: আবোল তাবোল, পাগলা দাশু সুকুমারের সৃষ্টি, সাংবাদিকের কলমজুড়ে হলুদ অ্যাসিড বৃষ্টি…

মরিচঝাঁপিতে আসলে ঠিক কী ঘটেছিল, কত লোকের মৃত্যু হয়েছিল, তা নিয়ে আজও বহু বিতর্ক রয়ে গিয়েছে। বিভিন্ন মানবাধিকার সংগঠনের সদস্য, সাংবাদিক, বুদ্ধিজীবীরা ১৯৭৯ সালের আগে পরে মরিচঝাঁপিতে গিয়েছেন, ঘটনার তদন্ত করেছেন, স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলেছেন। কিন্তু সেই রহস্য আজও কাটেনি। সিপিএম এখনও দাবি করে, মরিচঝাঁপিতে পুলিশের গুলিতে মাত্র দুজনের মৃত্যু হয়েছে। তখনকার অবিভক্ত দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলার পুলিশ সুপার অমিয় সামন্তের দাবি ছিল, উদ্বাস্তুদের উপর কোথাও বলপ্রয়োগ করা হয়নি। পুলিশের গুলিতে দু’জন মারা যান। তখন বামফ্রন্ট সরকার দাবি করে, এর পিছনে ফ্রন্ট সরকার ফেলার একটা চক্রান্ত ছিল। এর জন্য ফ্রন্টের বড় শরিক সিপিএম (CPM) ছোট শরিক আরএসপিকেও(RSP) কিছুটা দায়ী করেছিল। কারণ উদ্বাস্তুদের মধ্যে সেই সময় আরএসপির বিশাল প্রভাব ছিল। 

আজ ৪৪ বছর কেটে গিয়েছে। মরিচঝাঁপির সেই অভিশপ্ত দিনের স্মৃতি এখনও অনেকের মনে রয়ে গিয়েছে। আবার কারও কাছে তা ফিকে হয়ে গিয়েছে। ফি বছর এই দিনটিতে মরিচঝাঁপি নিয়ে কিছু আলোচনা, কিছু সভা হয়। এইটুকুই। তারপর সবাই ভুলে যায় মরিচঝাঁপিকে। আজও কেন মরিচঝাঁপির ঘটনার সঠিক তথ্য উঠে এল না, তার কোনও ব্যাখ্যা মেলে না।

আর্কাইভ

এই মুহূর্তে

Share Market | পতন অব্যাহত শেয়ার বাজারে, সোমবার সেনসেক্সের সূচক দাঁড়িয়েছে ৫৭ হাজারে
সোমবার, ২০ মার্চ, ২০২৩
Delhi Excise Policy Case | সিসোদিয়ার ফের ১৪ দিন জেল, ইডি দফতরে হাজিরা কেসিআর-কন্যার
সোমবার, ২০ মার্চ, ২০২৩
Higher Secondary Exam | অসুস্থ বাবাকে দেখতে গিয়ে দেরি, উচ্চ মাধ্যমিক দেওয়া হল না অভিজিতের
সোমবার, ২০ মার্চ, ২০২৩
Congress Leader Kaustav Bagchi: কংগ্রেস নেতা কৌস্তভ বাগচী সিআরপিএফ নিরাপত্তা পাচ্ছেন না 
সোমবার, ২০ মার্চ, ২০২৩
Modi-Mamata Deal | দিদি-মোদির ডিল, তাই রাহুলকে মমতার অপমান প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশেই, দাবি অধীরের 
সোমবার, ২০ মার্চ, ২০২৩
Sukanya Mandal | ফের হাজিরা এড়ালেন সুকন্যা, ইডি কী ভাবছে? 
সোমবার, ২০ মার্চ, ২০২৩
Birbhum TMC | এবার গরু পাচার কাণ্ডে নাম জড়াল বোলপুর পুরসভার চেয়ারম্যান পর্না ঘোষ ও তাঁর স্বামী সুদীপ্ত ঘোষের
সোমবার, ২০ মার্চ, ২০২৩
Patna Station Incident । পাটনা স্টেশনে ৩ মিনিট ধরে চলল নীল ছবি, সমালোচনার ঝড় 
সোমবার, ২০ মার্চ, ২০২৩
Sudipta Chakraborty | Dev | Controversy | সুদীপ্তার মতে,দেব এখন আগের চেয়ে অনেকটাই পরিণত
সোমবার, ২০ মার্চ, ২০২৩
Health Centers | বাংলায় আরও ২৩টি প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্র তৈরি করতে চলেছে রাজ্য সরকার
সোমবার, ২০ মার্চ, ২০২৩
Supreme Court On OROP | এক পদ, এক পেনশন মামলায় বকেয়া মেটানোর নির্দেশ সুপ্রিম কোর্টের
সোমবার, ২০ মার্চ, ২০২৩
Anurag Thakur OTT | ওটিটি প্ল্যাটফর্মে ‘অশ্লীলতা’! আইন বদলের হুঁশিয়ারি ক্ষুব্ধ অনুরাগ ঠাকুরের 
সোমবার, ২০ মার্চ, ২০২৩
English Premier League | ১৯ বছর পর কি ইপিএল জিততে চলেছে আর্সেনাল?
সোমবার, ২০ মার্চ, ২০২৩
NaMo | Kishida | কিশিদার আমন্ত্রণে মে মাসে জি৭ হিরোশিমা সম্মেলনে যাচ্ছেন মোদি
সোমবার, ২০ মার্চ, ২০২৩
Anubrata Mandal | মণীশের জেল হেফাজতের নির্দেশ, ঠিকানা কি তিহার জেল?
সোমবার, ২০ মার্চ, ২০২৩
© R.P. Techvision India Pvt Ltd, All rights reserved.
Developed By KolkataTV Team