কলকাতা সোমবার, ০২ অগাস্ট ২০২১, ০৩:৪৬ ( AM )
কর্ণাটক সরকার এবং বিজেপির বিপদ
জয়ন্ত ঘোষাল
  • প্রকাশের সময় : রবিবার, ৩০ মে, ২০২১, ০৯:৩৭:৩৫ পিএম
  • / ১৮৪ বার খবরটি পড়া হয়েছে

কর্ণাটকে মুখ্যমন্ত্রী ইয়েদুরাপ্পাকে নিয়ে নরেন্দ্র মোদী এবং অমিত শাহর এখন ঘোরতর সমস্যা। গত কয়েক মাস ধরে করোনা সমস্যা ঘোচাতে ইয়েদুরাপ্পা সরকার কার্যত ব্যর্থ। শুধু অক্সিজেনের সংকট নয়, ব্যাঙ্গালুরুতে অক্সিজেন তৈরির যে কারখানা সেখান থেকে অক্সিজেন দেওয়া নিয়েও প্রচুর বিতর্কের সৃষ্টি হয়। দিল্লিতে অক্সিজেন দেওয়া, না দেওয়া নিয়েও কেজরিওয়াল সরকারের সঙ্গেও নানান রকম বিবাদে জড়িয়ে পড়ে ইয়েদুরাপ্পা সরকার। পরিস্থিতি এমন হয় যে, বেশ কিছু সংসদ সদস্যের বিরুদ্ধে অভিযোগ ওঠে যে, এই করোনার সময় অক্সিজেন নিয়ে এবং বিভিন্ন ওষুধপত্র, ভ্যাকসিন নিয়েও নানা রকম চোরাকারবারি চালাচ্ছে তাঁরা। কংগ্রেসের পক্ষ থেকে এইসব অভিযোগ করা হয়। একজন সংসদ সদস্য তেজস্বী সুরিয়া তাঁর বিরুদ্ধে তো রীতিমতো কিছু প্রামাণ্য তথ্য হাজির করে বিরোধী পক্ষ। এই তেজস্বী সুরিয়া এখন অল্প বয়স এবং যুব নেতা হয়ে কেন্দ্রে অর্থাৎ দিল্লিতে এসেছেন। তিনি আবার মুখ্যমন্ত্রীর বিরুদ্ধে। কিন্তু তাঁর বিরুদ্ধে এইসব অভিযোগ ওঠায়, তাঁর উত্থানের যে গতি তা একটু ধাক্কা খেয়েছে।
এখন সর্বশেষ পরিস্থিতি জানার জন্য প্রধানমন্ত্রী সচিবালয় বারবার কর্ণাটকের মুখ্যমন্ত্রীর দফতরে ফোন করছে এবং রিপোর্ট চাইছে। যা জানা যাচ্ছে, এখন ব্যাঙ্গালুরুতে করোনারি পরিস্থিতি কিছুটা নিয়ন্ত্রণে এলেও জেলাগুলোর অবস্থা খুব খারাপ। এই রকম একটা পরিস্থিতিতে মুখ্যমন্ত্রীকে বদলের জন্য দাবি উঠেছে। আর যোগেশ্বর নামে এক পর্যটন মন্ত্রী ইয়েদুরাপ্পার চেয়ে বয়স কম। তিনি দু-তিন জন বিধায়ককে নিয়ে সম্প্রতি দিল্লিতে আসেন। সেখানে বিজেপি দলের যে সাংগঠনিক সম্পাদক অর্থাৎ যিনি আরএসএসের লোক সেই বিএল সন্তোষের ঘনিষ্ঠ তিনি। বিএল সন্তোষ মুখ্যমন্ত্রীর বিরুদ্ধে। বিএল সন্তোষ এই মুখ্যমন্ত্রীকে অমিত শাহ’র সঙ্গে বৈঠকের ব্যবস্থা করে দেন। অমিত শাহ’র কাছে তাঁরা ইয়েদুরাপ্পার বিরুদ্ধে প্রচুর অভিযোগ জানায়।
অভিযোগের মধ্যে এটাও আছে ইয়েদুরাপ্পার ছেলে, মেয়ে এবং জামাই, তাঁরা ওখানে দুহাতে লুঠ করছে। আর তাঁদের বিরুদ্ধে অবিলম্বে ব্যবস্থা নেওয়া হোক।
যোগেশ্বরের নেতৃত্বে এই এমএলএ প্রতিনিধি দল তাঁরা এসেছিল কয়েক দিন আগে। তার আগে আরও ছয় জন এমএলএ তাঁরাও একই ভাবে মুখ্যমন্ত্রী হঠাও অভিযানে এসেছিলেন। সমস্যা হচ্ছে মুখ্যমন্ত্রী ইয়েদুরাপ্পা লিংগায়েত জাতের প্রতিনিধি, যেটা বিজেপির সবচেয়ে বড় ভোট ব্যাঙ্ক। কিন্তু সেরকম কোনো লিংগায়েত নেতা নেই যে, ইয়েদুরাপ্পাকে সরিয়ে এখন তাঁকে মুখ্যমন্ত্রীর কুর্সিতে বসানো যেতে পারে। একজন লিংগায়েত নেতা, নাম জগদীশ সেট্টার। তিনি মুখ্যমন্ত্রী হয়েছিলেন। এখন প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী। কিন্তু তাঁর সেই স্টেচারটা নেই।
এছাড়া বসুরাজ বোম্বাই। তিনি জনতা দল থেকে এসেছেন। এস আর বোম্বাইয়ের ছেলে। তাঁকেও পছন্দ এইজন্য করা যাচ্ছে না। কারণ তিনি জনতা দল থেকে এসেছেন। বিজেপির একটা সমস্যা আছে যে, তাঁরা নিজেদের দলের লোককে মুখ্যমন্ত্রী করতে চায়। বাইরে থেকে আসা লোককে মুখ্যমন্ত্রী করতে চায় না।
এইরকম একটা অবস্থায় ইয়েদুরাপ্পাকে চাপের মধ্যে রাখছেন নরেন্দ্র মোদী এবং অমিত শাহ। সরানোরও হিম্মত হচ্ছে না। আবার জনপ্রিয়তাও কমছে। লিংগায়েত লিডার কংগ্রেসে কেউ নেই। কংগ্রেসে যেটা হয়েছে সেটা হচ্ছে, সিতারামাইয়া এবং শিব কুমার। শিবকুমার হচ্ছেন কংগ্রেসের রাজ্য সভাপতি এবং পরিষদীয় দলের নেতা। তিনি হচ্ছেন ভোককালিকা সম্প্রদায়ের অন্তর্ভুক্ত। কিন্তু সিতারামাইয়া? তিনি হচ্ছেন, ওদের ভাষায় যাকে বলে ছাপরড জাতের অন্তর্ভুক্ত। অর্থাৎ ভেড়াদের দেখভাল করতো যে জাত। কিন্তু লিংগায়েত না থাকায় এখন দুম করে লিংগায়েতের কোনো নেতাকে সরিয়ে সেখানে এখনো কাউকে তাঁরা আনতে পারছেন না। তা না হলে প্রহ্লাদ যোশীকে মোদীর খুব পছন্দ। প্রহ্লাদ যোশীকে মুখ্যমন্ত্রী করে পাঠাতে পারতেন, কিন্তু যোশী ব্রাহ্মণ।
এখন একটা থিওরি দেওয়া হচ্ছে যে, লিংগায়েত গোষ্ঠী তবু ব্রাহ্মণের সঙ্গে ঘর করতে পারে কিন্তু ভোককালিকার সঙ্গে করবেন না। ভোককালিকা এবং দলিত একসঙ্গে থাকেন। সুতরাং এখানে অন্য কাউকে করাটা ঠিক হবে না। অনন্ত কুমার ব্রাহ্মণ নেতা থাকলেও তিনি ইয়েদুরাপ্পাকে চাপে রাখতেন। অনন্ত কুমারের মৃত্যুর পরে ইয়েদুরাপ্পা আরও বেপরোয়া হয়ে উঠেছেন। এই পরিস্থিতিতে দেবেগৌড়ার ছেলে, তিনি জনতা দলের নেতা। তিনি আবার ঘোরতর কংগ্রেসের বিরুদ্ধে। যতটা তিনি জনতা পার্টির বিরুদ্ধে। বিজেপিতে না গেলেও তিনি বিজেপির সঙ্গে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক রাখেন। যার কারণে দেবেগৌড়ার ছেলের একজন মনোনীত ব্যক্তিকে বিধান পরিষদের চেয়ারম্যান পদে দেওয়া হয়েছে।
এখন এই পরিস্থিতিতে মুখ্যমন্ত্রী বদল করাও সম্ভব হচ্ছে না। আবার তাঁকে রেখে সরকার চালানোটা কার্যত অসম্ভব হয়ে পড়ছে। এখন কংগ্রেস কিন্তু বিরোধী দলের ভূমিকায় ওখানে বেশ আক্রমণাত্মক। সর্বশেষ কথা হচ্ছে, সন্তোষ ও ইয়েদুরাপ্পাকে সবসময় চাপের মধ্যে রাখছে।
সর্বশেষ প্রস্তাব আছে, যদি মন্ত্রীসভার রদবদল করতেই হয় তাহলে যেন অসমের মুখ্যমন্ত্রী সোনওয়ালকে ও জোতিরাদিত্যকে আনা হয়। সেইসময় ইয়েদুরাপ্পাকে যদি কেন্দ্রীয় মন্ত্রী সভায় নিয়ে এসে, ওখানে যদি অন্য কোনো লোককে মুখ্যমন্ত্রী করা হয়। আর সেখানে যদি প্রহ্লাদ যোশীকে করা হয়, তাহলে কেন্দ্রে লিংগায়েত এবং রাজ্যে ব্রাহ্মণ। কিন্তু সেই পরীক্ষাটাও উল্টে বিপত্তি না হয়ে যায় সেটাও দেখতে হবে। সেই কারণে খুব সমস্যার মধ্যে রয়েছে নরেন্দ্র মোদী এবং অমিত শাহ।

আর্কাইভ

এই মুহূর্তে

দমদমে দূষ্কৃতীদের গুলিতে হত ১
সোমবার, ২ আগস্ট, ২০২১
বন্যা বিপর্যস্ত খানাকুল, উদ্ধারকার্যে নামল হেলিকপ্টার
সোমবার, ২ আগস্ট, ২০২১
ধসের জেরে বন্ধ শিলিগুড়ি-সিকিম যোগাযোগ
সোমবার, ২ আগস্ট, ২০২১
মধ্যপ্রদেশে প্রবল বর্ষণে বাড়ি ধসে মৃত ৬, রাজস্থানেও জারি লাল সর্তকতা
রবিবার, ১ আগস্ট, ২০২১
চুমু রুখতে শহরে ‘নো কিসিং জোন’
রবিবার, ১ আগস্ট, ২০২১
KPL: হুমকি ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের! চাঞ্চল্যকর অভিযোগ
রবিবার, ১ আগস্ট, ২০২১
ভারত থেকে ‘লুঠ’ করা ১৪ টি শিল্প নিদর্শন ফিরিয়ে দেবে অস্ট্রেলিয়া
রবিবার, ১ আগস্ট, ২০২১
উন্নাওয়ে ধর্ষিতার পরিবারকে হেনস্থা, নিরাপত্তা কর্মীদের বিরুদ্ধে সিবিআই তদন্তের নির্দেশ আদালতের
রবিবার, ১ আগস্ট, ২০২১
রাজ্যে মিউকরমাইকোসিসের বলি আরও এক, মোট মৃত ২১
রবিবার, ১ আগস্ট, ২০২১
মেদিনীপুরে বন্যা পরিস্থিতির জেরে পিছল বিশ্ববিদ্যালয়ের পরীক্ষা
রবিবার, ১ আগস্ট, ২০২১
৫৬ বছর পর ফের হলদিবাড়ি- বাংলাদেশের চিলাহাটি রুটের ট্রেন চালু
রবিবার, ১ আগস্ট, ২০২১
বড় উদ্যোগ সেচ দফতরের, বালুরঘাটে তিন কোটি ব্যয়ে ৪টি স্লুইস গেট
রবিবার, ১ আগস্ট, ২০২১
অশান্তি মেটাতে স্যাটেলাইটের মাধ্যমে উত্তর-পূর্বের সীমানা পুনর্বিন্যাসের সিদ্ধান্ত কেন্দ্রের
রবিবার, ১ আগস্ট, ২০২১
কেরল থেকে রাজ্যে ঢুকতে আরটি-পিসিআর সার্টিফিকেট বাধ্যতামূলক
রবিবার, ১ আগস্ট, ২০২১
বাড়ল মৃতের সংখ্যা, সংক্রমণের নিরিখে শীর্ষে উত্তর ২৪ পরগণা, দার্জিলিং
রবিবার, ১ আগস্ট, ২০২১
© R.P. Techvision India Pvt Ltd, All rights reserved.
Developed By KolkataTV Team