কলকাতা বুধবার, ২০ অক্টোবর ২০২১, ০৬:৫৯ ( AM )
চতুর্থ স্তম্ভ  : সোনার ফসল ফলায় যারা……
সম্পাদক
  • প্রকাশের সময় : সোমবার, ৪ অক্টোবর, ২০২১, ১০:৩০:২৬ পিএম
  • / ৯২ বার খবরটি পড়া হয়েছে
  • • | Edited By:

হিন্দি মারকাটারি সিনেমায় একটা সময়ে দেখা যায়, ভিলেন বলছে, তুমলোগোঁকা জিনা হরাম কর দুঙ্গা, গোলি সে ভুন দুঙ্গা। তারপর ভিলেনের দলবল আসে, সেই বস্তির মানুষ বা শ্রমিক বা কৃষকদের খুন করে। এ দৃশ্য বহুবার সিনেমার পর্দায় আমরা দেখেছি, এবার বাস্তবে। কদিন আগেই, মোদি সরকারের স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী অজয় মিশ্র টেনি আন্দোলনকারী কৃষক নেতাদের বলেছিলেন, “সুধর যাও, নহি তো দো মিনিট কা ওয়ক্ত লগেগা, সুধার দেঙ্গে”। সাদা বাংলায়, আন্দোলন বন্ধ করো, নাহলে বুঝিয়ে দেবো। তো দিলেন, এখনও পর্যন্ত খবর ৫ জন কৃষককে হত্যা করা হয়েছে, স্রেফ গাড়ির চাকার তলায় পিষে, আহত আরও বেশ কিছু। ঘটনার বিবরণ এইরকম, উত্তরপ্রদেশের লখিমপুর খেরিতে গতকাল মোদি সরকারের স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী অজয় মিশ্রা, রাজ্যের উপ মুখ্যমন্ত্রী কেশব প্রসাদ মৌর্যের আসার কথা ছিল, হেলিপ্যাড তৈরি হয়েছিল, কিন্তু তাঁরা সেখানে আসার আগেই নয় নয় করে হাজার দশেক কৃষক ঐখানে এসে হাজির হয়, হেলিকপ্টার নামতে পারবে না জেনেই, তাঁরা তাঁদের সফর বাতিল করেন। পুলিশ প্রশাসন জানিয়ে দেয়, মন্ত্রীরা সফর বাতিল করেছেন, আপনারা ফিরে যান। তাঁরা ফিরে যাচ্ছিলেন, সেই সময়ে অজয় মিশ্রের ছেলে আশিস মিশ্র এবং আরও কয়েকজন, তিনটে এস ইউ ভি গাড়িতে এসে রাস্তার ধার দিয়ে যে কৃষকরা ফিরছিলেন, তাদের কয়েকজনকে গাড়ি নিয়ে ধাক্কা দেন, ঘটনাস্থলেই তিনজন মারা যান, হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয় সাতটা দেহ, তাদের মধ্যে ৫ জন কৃষক, যাদেরকে মৃত বলে ঘোষণা করা হয়, পরে আরও একজনের মৃতদেহ পুলিশ আনে, যে মৃতদেহ নিয়ে নতুন বিতর্ক তৈরি হয়, কৃষক নেতাদের দাবি, এই অষ্টম জনকে তাঁরা ধরে ফেলেছিলেন, সে ঐ গাড়িতেই ছিল, তাকে ধরে তারা পুলিশের হাতে জমা করে, কিছুক্ষণ পরে তার মৃতদেহ আনা হয় হাসপাতালে, কৃষকদের দাবি, ঐ ব্যক্তিকে যে জ্যান্ত পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া হচ্ছে, তার ভিডিও আছে, তাঁদের বক্তব্য, যোগী সরকার এর পুলিশ প্রমাণ ঢাকতেই, ঐ লোকটিকে হত্যা করে। আজ সকালে খবর পাওয়া যাচ্ছে, মৃতদের মধ্যে একজন সাংবাদিকও আছেন, যাকে ঐ গাড়ির চাকার তলায় ফেলেই হত্যা করা হয়েছে।  রাতেই প্রিয়াঙ্কা গান্ধী লখনউ হয়ে লখিমপুর খেরির দিকে রওনা হলে, তাঁকে লখনউতে আটকে দেওয়া হয়, সকালে অখিলেশ যাদবের বাড়ির সামনে, পুলিশ তাঁকে আটকে দেয়, উনি রাস্তায় বসেই তার প্রতিবাদ করছেন। টিকায়েত ঘটনাস্থলে পৌঁছে গেছেন, বিভিন্ন দলের নেতারা সেখানে যাচ্ছেন, তৃণমূলের দোলা সেন সমেত বেশ কিছু নেতা লখিমপুর খেরির দিকে রওনা দিয়েছেন, টিকায়েত ইতিমধ্যেই সেখানে পৌঁছে গেছেন, এবং প্রশাসন প্রথমেই এলাকার ইন্টারনেট বন্ধ করেছেন। কৃষকদের লাশ নিয়ে বসে রয়েছেন কৃষক নেতারা, দাবি আগে গ্রেফতার করা হোক ঐ আশিস মিশ্র অ্যান্ড কোম্পানিকে, অজয় মিশ্র পদত্যাগ করুক আর ইন্টারনেট চালু হোক, ওদিকে কংগ্রেসের ছত্তিশগড়ের মুখ্যমন্ত্রী ভূপেশ বাঘেল, পঞ্জাবের উপ মুখ্যমন্ত্রী সুখজিন্দর রনধাওয়ার আজ সকালেই, লখনউ বিমান বন্দরে যাবার কথা ছিল, তাঁদের বিমানবন্দরে নামতেই দেওয়া হয়নি, সিদ্ধান্ত, লখিমপুরে কোনও রাজনৈতিক দলের নেতাদের ঢুকতে দেওয়া হবে না, সিদ্ধান্ত নিয়েছে উত্তরপ্রদেশ সরকার। লখিমপুরে প্রচুর পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে, পুলিশ দিয়ে এই কৃষক হত্যা, সাংবাদিক হত্যাকে ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা চলছে। এই ছক পুরনো, খুব পুরনো, যোগী সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকেই এই ভাবেই শাসন চালাছে, হাথরস থেকে লখিমপুর খেরি একই ইতিহাস।

আরও পড়ুন : চতুর্থ স্তম্ভ : ভবানীপুর

হরবখত টুইট করে মন কি বাতেঁ প্রকাশ করা প্রধানমন্ত্রী চুপ, পাঁচজন কৃষক, একজন সাংবাদিক হত্যার বিষয়ে তিনি নীরব, পুলিশি রাজ নিয়ে কোনও কথা নেই তাঁর মুখে, অথচ যখন তখন গণতন্ত্র গণতন্ত্র বলে ভাষণও দিচ্ছেন। আসলে যে কোনও স্বৈরতান্ত্রিক শাসক, দল গণতন্ত্রের কথা বলে গণতন্ত্রকে হত্যা করার জন্য, স্বৈরতন্ত্র আর গণতন্ত্র পাশাপাশি চলে না, মোদিজী বা যোগীজী তার ব্যতিক্রম নয়, তাঁদের মনে হয়েছে কৃষক আন্দোলনকে পুলিশি দমন, নিপীড়ন দিয়ে থামিয়ে দেওয়া যাবে, তাঁরা বুঝতেই পারছেন না যে অন্নদাতাদের বিরুদ্ধে দাঁড়িয়ে পৃথিবীর কোনও শাসকই টিঁকে থাকতে পারেনি, কোনও শাসক নয়, আমাদের মতো কৃষিপ্রধান দেশে তা আরও অসম্ভব। গতকাল যে ঘটনা ঘটল, তা এই মোদি – শাহ – যোগী শাসনকে আরও উলঙ্গ করে মানুষের সামনে তুলে ধরল, আজ তেরো মাস ধরে কৃষকরা আন্দোলন করছেন কেন? তাঁদের জমির লড়াই, তাঁদের জীবন আর জীবিকার লড়াই, লক্ষ লক্ষ কৃষক এই আন্দোলনে সামিল, যে আইন সরকার এনেছেন, তাঁরা সেই আইন ফেরত নেবার কথা বলছেন, তাঁদের এটাই একমাত্র দাবি, সরকার কখনও জলকামান, কখনও লাঠি গুলি দিয়ে তাদের সমাবেশ মিছিল ভাঙার চেষ্টা করছেন, কখনও হুমকি দিচ্ছেন জানে মেরে ফেলার, মেরে ফেলছেনও, তাদের সব সীমা তাঁরা ছাড়িয়ে গেলেন গতকাল। পৃথিবীর কোনও সভ্য দেশে একজন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বলেন, সুধর জাও, নহি তো দো মিনট মে সুধার দেঙ্গে, এবং এই জাতীয় কথা তিনি একা নন, এর কদিন আগে হরিয়ানার বিজেপি নেতা, মুখ্যমন্ত্রী মনোহর লাল খট্টরও বলেছেন, তিনি এই আন্দোলন বিরোধী কৃষকদের হাতে অস্ত্র তুলে নিতে বলেছেন, আর কদিন পরেই এই ঘটনা ঘটল। আসলে এই কৃষক আন্দোলন নিয়ে বেসামাল মোদি – যোগী সরকার, তাঁরা বিলক্ষণ জানেন সামনের নির্বাচনে, এই আন্দোলনের খেসারত তাঁদের দিতে হবে, তাই এই নির্লজ্জ আস্ফালন। তাঁদের টিকে থাকার অস্ত্রই আজ ঐ পুলিশ, সিবিআই, ইডি আর প্রশাসন, কখনও রাজনৈতিক নেতাদের ইডি, ইনকাম ট্যাক্স, সিবিআই লেলিয়ে দিচ্ছেন, কখনও স্বাধীন সংবাদমাধ্যমকে চুপ করানোর জন্য সংবাদমাধ্যমের দফতরে নোটিস পাঠাচ্ছেন, কখনও গুন্ডা পাঠিয়ে আন্দোলনকারীদের গাড়ির চাকার তলায় পিষে মারছেন, এবং আজই ঐ স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী বলেছেন, এরা সব দেশদ্রোহী চক্রান্তকারীর দল, যারা ঐখানে গাড়ি ভাঙচুর করছিল, সেইখানেই সংঘর্ষে তারা মারা গেছেন, এবং দেশের বিরোধী দলনেতারা সেই উত্তেজনায় আগুন দিতে আসছেন, তাই তাদের আটকানো হয়েছে।

 এরকম আমরা ঢের শুনেছি, কৃষকদেরই উন্নতির জন্য জমি কেড়ে নেওয়ার কথা শুনিনি? কেমিক্যাল হাবের নাম করে জমি কেড়ে নেওয়ার কথা আমরা জানি না? জানিনা কেমন করে পুলিশ পাঠিয়ে, গুন্ডা লেলিয়ে, মানুষের মুখ বন্ধ করে সেই আন্দোলনকে দমন করার চেষ্টা হয়েছিল? আজ তারা কোথায়? সাম্রাজ্যের ভগ্নস্তুপটুকুও দেখা যাচ্ছেনা, আজ লখিমপুর খেরির ঘটনার পরে ঠিক সেটাই মনে হচ্ছে, আমাদের অন্নদাতারা লড়ছেন তাদের জমির অধিকার, ফসলের অধিকারের জন্য, তাঁদের এই জায়জ লড়াইয়ের পাশে দাঁড়িয়েছেন দুনিয়ার মানুষ, কোনও দমন অত্যাচার, পুলিশি নিপীড়ন দিয়ে তা আজ আর থামানো সম্ভব নয়, প্রত্যেকটা আন্দোলনের এক মাইলস্টোন থাকে, এক গুরুত্বপূর্ণ মোড়, টার্নিং পয়েন্ট থাকে, এই কৃষক আন্দোলনের টার্নিং পয়েন্ট হবে এই লখিমপুর খেরির হত্যাকান্ড, দেশজোড়া প্রতিবাদের ঢেউ উঠছে, দল নির্বিশেষে নেতা কর্মী, সমর্থকরা তো বটেই, সাধারণ মানুষও পথে নামছেন, এই শহীদদের রক্ত বিফলে যাবে না, আমাদের অন্নদাতাদের রক্ত যে ভূমিতে পড়ল, সেখান থেকেই লেখা হবে নতুন অধ্যায়, নতুন ইতিহাস। লখিমপুর খেরি বিখ্যাত ছিল, সিপাহী বিদ্রোহের জন্য, উমরাও জান বা গমন- এর মত ছবির স্যুটিং স্পট হিসেবে, খয়ের চাষের জন্য, এবার সেই লখিমপুর খেরি ভারতবর্ষের বর্তমান রাজনৈতিক মানচিত্রে অন্য পরিচয় পাবে, কাকে কাকে আটকাবে? পঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন তিনি আসবেন, উদ্ধব ঠাকরে জানিয়েছেন এই নৃশংস ঘটনার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করতে তিনিও যেতে পারেন, রাহুল গান্ধী আগামীকাল যাবার পরিকল্পনার কথা জানিয়েছেন, অখিলেশ যাদব বলেছেন আজ আটকানো হলেও, কাল তিনি আবার যাবার চেষ্টা করবেন, সিপিআইএমএল লিবারেশনের তরফেও জানানো হয়েছে, তাদেরও এক বড় প্রতিনিধি দল যাবেন, সম্ভবত দীপঙ্কর ভট্টাচার্যও থাকবেন, প্রতিটি রাজ্যে আজ প্রতিবাদ সভায় যোগ দিচ্ছেন অসংখ্য সাধারণ মানুষ, যাঁরা একবেলাও ভাত খান, যাঁরা এই অন্নদাতাদের কাছে ঋণী তাঁরা এই জুলুম সহ্য করবেন না, এই স্বৈরতান্ত্রিক সরকারকে উপড়ে ফেলে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার লড়াইয়ে, লখিমপুর খেরি হয়ে উঠবে প্রতিবাদের অনন্য নাম।

আর্কাইভ

এই মুহূর্তে

ক্যামেরায় ধরা পড়ল লাভার মেঘ ভাঙা বৃষ্টির অপরূপ দৃশ্য
বুধবার, ২০ অক্টোবর, ২০২১
আজ ভাসতে পারে উত্তরবঙ্গ, নিম্নচাপ সরায় দক্ষিণে কমবে বৃষ্টি
বুধবার, ২০ অক্টোবর, ২০২১
স্থগিত আইসিএসই-আইএসসি প্রথম সিমেস্টারের পরীক্ষা
বুধবার, ২০ অক্টোবর, ২০২১
তিতুমীরের গ্রামে সম্প্রীতির অন্য নজির, হিন্দু যুবকের সৎকারে মুসলিম গ্রামবাসী
বুধবার, ২০ অক্টোবর, ২০২১
আন্দোলনের ‘শাস্তি’, মিলল না রাতের খাবার, অভুক্ত রইলেন খড়গপুর আইআইটির ৫৫০ পড়ুয়া
বুধবার, ২০ অক্টোবর, ২০২১
গেরুয়া শিবিরের আক্রমণের মুখে ‘জশন-ই-রিওয়াজ’ প্রোমো সরাল ফ্যাব ইন্ডিয়া
বুধবার, ২০ অক্টোবর, ২০২১
সীমান্ত পাহারায় আরও বেশি ক্ষমতা বিএসএফের হাতে, বাংলা-পঞ্জাবকে নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা?
বুধবার, ২০ অক্টোবর, ২০২১
নতুন দল গঠনের ঘোষণা অমরিন্দরের, বিজেপির সঙ্গে জোট বেঁধে লড়তে পারেন ভোটে
মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর, ২০২১
খুনের আগে তিনজনের সঙ্গে মোবাইলে কথা বলেন কর্পোরেট কর্তা সুবীর চাকি
মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর, ২০২১
হিন্দুদের উপর হামলায় জড়িতদের কড়া শাস্তি দিতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে নির্দেশ হাসিনার
মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর, ২০২১
বিপদসীমায় জল তিস্তায় সতর্কতা, ডুবল দশ নম্বর জাতীয় সড়ক
মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর, ২০২১
বিপর্যয়ের শঙ্কা, রাস্তায় বেরোতে নিষেধ করল শিলিগুড়ি পুলিস
মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর, ২০২১
ডেনমার্কে কোর্টে ফিরেই জয় সিন্ধুর
মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর, ২০২১
বৃষ্টি-ধসে উত্তরাখণ্ডে আটকে রাজ্যের ১৪ পর্যটক
মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর, ২০২১
অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধেই চূড়ান্ত ব্যাটিং অর্ডার বেছে নিতে চান বিরাট
মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর, ২০২১
© R.P. Techvision India Pvt Ltd, All rights reserved.
Developed By KolkataTV Team